25 C
Dhaka
Thursday, June 20, 2024

দেশের অনেক টাকা পাচার হয়ে গেছে, আনার সুযোগ দিচ্ছি: কাদের

ডেস্ক রিপোর্ট:

নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বিদেশে পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনার সুযোগ নিয়ে সরকারের অবস্থান সম্পর্কে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, দেশের অনেক টাকা পাচার হয়ে গেছে। অন্যান্য দেশেও এই ধরনের সুযোগ দেওয়া হয়। আমরা সেই সুযোগটা দিচ্ছি। আমরা দেখি, যদি এই সুযোগের সুফল না আসে তাহলে আমরা সুযোগটা উঠিয়ে নেব। এই বাজেটের দেওয়া সুযোগে আমরা সুফল পেতে পারি।

পাচার হওয়া টাকা ফেরত আনতে নতুন অর্থবছরের বাজেটে যে সুযোগ রাখা হয়েছে, তা নিয়ে বিএনপির সমালোচনাকে দলটির ‘ডাবল স্ট্যান্ডার্ড’ বলেও মন্তব্য করেছেন সরকারের এই মন্ত্রী। 

শনিবার বিকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের বাজেট পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

এসময় বাজেট নিয়ে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘মির্জা ফখরুলসহ দেশের একটি চিহ্নিত মহল ক্রমাগতভাবে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে অর্থপাচার হচ্ছে বলে অভিযোগ করছে। তাদের বক্তব্য যদি সত্য হিসেবেই ধরে নেই, তাহলে সাত শতাংশ কর দানের মাধ্যমে কেউ যদি টাকা দেশে নিয়ে আসে, তাহলে মির্জা সাহেবদের খুশি হওয়ার কথা। এখন কেন তারা অভিযোগ করছে? অর্থপাচারের অভিযোগ তুলবেন, আর যখন টাকা ফেরত আনার উদ্যোগ নেব, তখনো অভিযোগ করবেন, সেটা তো আপনাদের ডাবল স্ট্যান্ডার্ড, দ্বিচারিতা।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার কালো টাকা সাদা করার প্রসঙ্গে এনে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ক্ষমতায় থাকাকালে ৩৪ লাখ টাকা জরিমানা দিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া দুইবার কালো টাকা সাদা করেছেন। বাংলাদেশের মানুষ জানে কারা দেশের টাকা বিদেশে পাচার করে। পাচারকারী হিসেবে আপনাদের (বিএনপি) বিশ্ব রেকর্ড।’

প্রস্তাবিত বাজেটকে শেখ হাসিনার দুরদর্শী নেতৃত্বে সম্পূর্ণ আত্মনির্ভরশীল জাতি গঠনের প্রত্যয় নিয়ে বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর বাজেট উল্লেখ করে সেতুমন্ত্রী বলেন, করোনা পরবর্তী প্রেক্ষাপট এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের বিশ্ব অর্থনীতিতে যে চাপ সৃষ্টি করেছে- তা বিবেচনায় নিয়ে বলা যায় প্রস্তাবিত বাজেটটি সম্পূর্ণ বাস্তবসম্মত এবং সময়োপযোগী। জনমুখী, জনকল্যাণকর এবং বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় অঙ্কের বাজেট। বর্তমান বিশ্ব অর্থনীতির বাস্তবতায় পৌনে সাত লাখ কোটি টাকার এই বাজেট শেখ হাসিনার নেতৃত্বে অর্জিত বাংলাদেশের অর্থনীতির সক্ষমতার প্রতিফলন।

আন্তর্জাতিক বাজারের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের মূল্যবৃদ্ধি বাংলাদেশে সহনীয় রাখতে বাজেটে ৮৩ হাজার কোটি টাকার ভর্তুকি রাখা হয়েছে বলে উল্লেখ করেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বাজারে মূল্যবৃদ্ধির চাপ দেশের মানুষের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হবে না প্রধানমন্ত্রী সেটা বলেছেন। যদিও আন্তর্জাতিক বাজারে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

বাংলাদেশের অর্থনীতি গত দেড় দশকে একটি শক্তিশালী ভিত্তির ওপর দাঁড়িয়েছে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্যের যখন গড় মূল্যস্ফীতি যথাক্রমে ৮.৩৯ শতংশ, পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতে ৭.৮ শতাংশ এবং বিশ্বের অন্যান্য অনেক উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশে মূল্যস্ফীতি ৮ শতাংশের ওপর। সেখানে প্রস্তাবিত বাজেটে মূল্যস্ফীতি হার শতকরা মাত্র ৫.৬ শতাংশ রাখার চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছে শেখ হাসিনার সরকার। এই অর্থবছরে দেশের জনগণের মাথাপিছু আয় দাঁড়াবে তিন হাজার নয় মার্কিন ডলার।

সর্বশেষ সংবাদ

শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি ফেরাতে নতুন পরিকল্পনা করছে মন্ত্রণালয় শিখনঘাটতি পূরণ করতে শনিবার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাতিল করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এ মুহূর্তে বর্তমান শিক্ষাপঞ্জি অনুসরণ করে ঈদুল...

ঈদে মোটরসাইকেলে বাড়ি ফিরতে গিয়ে প্রাণ গেলো ২ ভাইয়ের

আবারও ঈদের দিনে দুর্ঘটনার খবর। ঈদে বাড়ি ফেরার পথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে আপন দুই ভাই নিহত হয়েছেন। সোমবার (১৭ জুলাই) সকালে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে...