29 C
Dhaka
Wednesday, April 24, 2024

বন্যার পর ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াইয়ে সিলেটবাসী

ডেস্ক রিপোর্ট:

সিলেটে ধীরগতিতে নামছে বন্যার পানি। আশ্রয়কেন্দ্র থেকে মানুষ বাড়িতে ফিরতে শুরু করেছে। কিন্তু বাড়ি ফিরে তাদেরকে হতাশায় পড়তে হচ্ছে। কারোর ভিটা শূন্য। কারোর বসত ঘরের চিহ্ন নেই। কারো ঘর আবার মাটিতে মিশে গেছে। খেতের ফসল আর খামারের মাছ তো আগেই ভেসে গেছে। গোয়ালের গরু এবং গুদামের ধান সবই বানের পানি কেড়ে নিয়েছে। বন্যার মাঝে বেঁচে থাকার লড়াইয়ে জয়ী হয়ে বাড়ি ফিরে এখন তাদের ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই শুরু হয়েছে।

সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার নন্দিরগাঁও ইউনিয়নের নোয়াগাঁও গ্রামের আবদুল কাদির। ছয় সদস্যের পরিবারের উপার্জনের একমাত্র অবলম্বন ছিল শ’খানে হাঁস। ভয়াবহ বন্যায় পরিবারের সবাইকে নিয়ে আশ্রয়কেন্দ্রে ওঠেছিলেন। পানি কমায় বাড়ি ফিরে দেখেন কাঁচা বসতঘরটি মাটিতে মিশে গেছে। হাঁস ভেসে গেছে। আশ্রয়কেন্দ্র ছেড়ে আসা আবদুল কাদিরের মাথা গুঁজার ঠাঁই, আসবাবপত্র, আয়ের একমাত্র উৎস হাঁস খুঁইয়ে এখন সর্বহারা।

নিজের অসহায়ত্ব প্রকাশ করতে গিয়ে বললেন, ‘এমন বেঁচে থাকার চেয়ে বন্যার পানিতে ডুবে মারা যাওয়াটাই ভালো ছিল। এখন তো না পারবো বাঁচতে, না পারবো মরতে। নতুন করে জীবন শুরু করারও কোনো উপায় নেই।’

আবদুল কাদিরের মতো সিলেটের হাজার হাজার মানুষের একই অবস্থা। এক মাসের ব্যবধানে দুই দফা বন্যায় এলাকার বেশিরভাগের বাড়িঘর হয়তো ভেসে গেছে, নয়তো ভেঙে পড়েছে। যেগুলো এখনো দাঁড়িয়ে আছে সেগুলোর অবস্থাও খুবই খারাপ। যে কোনো সময় ভেঙে পড়ে পারে।

সিলেটের হাওর এলাকার লোকজনের বেশিরভাগই কৃষির উপর নির্ভরশীল। কেউ কৃষিকাজ করে, কেউ মৎস্য চাষ আর কারো জীবন চলে গরু-ছাগল-হাঁস লালন পালন করে। কিন্তু এবার বন্যায় তাদের সর্বস্ব কেড়ে নিয়েছে। বন্যায় ভেসে গেছে বীজতলা ও সদ্য তোলা বোরো ধান। আকস্মিক বন্যার কারণে বেশিরভাগ কৃষক ঘরে সংরক্ষিত ধান নিরাপদে সরিয়ে নিতে পারেননি। ফলে বন্যার পানিতে ধান নষ্ট হয়ে গেছে। মাছ ও হাঁস ভেসে গেছে বন্যায় প্লাবিত হওয়ার পরই। বন্যার পানিতে ভেসে গিয়ে অনেকের গবাদি পশুও মারা গেছে।

সিলেট জেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বন্যায় সিলেটি সিটি করপোরেশনের একাংশ এবং জেলার ১৩টি উপজেলা ও পাঁচ পৌরসভা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। এতে চার লাখ ১৬ হাজার ৮১৯ পরিবারের ২১ লাখ ৮৭ হাজার ২৩২ জন মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েন। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২২ হাজার ৪৫০ ঘরবাড়ি। ২৮ হাজার ৯৪৫ হেক্টর জমির ফসলহানি হয়েছে। তবে ক্ষতির প্রকৃত পরিমাণ এর দ্বিগুণ হবে বলে ধারণা সাধারণ মানুষের।

এখন পর্যন্ত বন্যার্তদের জন্য ত্রাণ হিসেবে কেবলমাত্র খাবার ও নগদ টাকা সরকারিভাবে বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। রবিবার পর্যন্ত বরাদ্দকৃত ত্রাণ ও নগদ টাকার পুরোটাই বিতরণ হয়ে গেছে। তবে পুনর্বাসন প্রক্রিয়া এখনো শেষ হয়নি।

সিলেটের জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান জানিয়েছেন, বন্যার পানি পুরোপুরি নেমে যাওয়ার পর পুনর্বাসন প্রক্রিয়া শুরু হবে। সরকারের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনীয় সহযোগিতা করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

ময়মনসিংহে ট্রেনের ধাক্কায় নিহত স্বামী-স্ত্রী, আহত শিশু

ময়মনসিংহ নগরীর একটি রেলক্রসিংয়ে ট্রেনের ধাক্কায় রিকশা আরোহী স্বামী-স্ত্রী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় এক শিশু আহত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৩ এপ্রিল) রাত সাড়ে ১০টার দিকে নগরীর...

ব্যাংক একীভূতকরণ প্রক্রিয়া ঋণখেলাপিদের দায়মুক্তির নতুন মুখোশ: টিআইবি

ব্যাংক একীভূতকরণ প্রক্রিয়া ঋণখেলাপি ও জালিয়াতির জন্য দায়ী মহলকে ‘দায়মুক্তি’ প্রদানের নামান্তর বলে জানিয়েছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)। সংস্থাটির ভাষ্য, তড়িঘড়ি ও জোরপূর্বক একীভূতকরণ ব্যাংকিং...

প্রথম ধাপে উপজেলায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় ২৬ প্রার্থী নির্বাচিত

উপজেলা নির্বাচনের প্রথম ধাপের ৭ জন চেয়ারম্যান, ৯ জন ভাইস চেয়ারম্যান এবং ১০ জন মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। চূড়ান্ত তালিকা এলে...

স্ত্রীর সনদ বাণিজ্য নিয়ে কিছুই জানেন না কারিগরির সাবেক চেয়ারম্যান

সম্প্রতি গণমাধ্যমে আলোচনা এসেছে বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের সনদ বাণিজ্যের ঘটনা। প্রতিষ্ঠানটির সদ্য সাবেক চেয়ারম্যান আলী আকবর খান বলেছেন, আমার স্ত্রী সেহেলি পারভীনের সার্টিফিকেট বাণিজ্যের...

হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি কমাতে যেসব নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

তীব্র তাপপ্রবাহে চরম অস্বস্তিতে রয়েছে সারাদেশের মানুষ। হঠাৎ তাপমাত্রার এমন উর্ধ্বগতিতে সবারই হাঁসফাঁস অবস্থা। অসহ্য তাপমাত্রার ফলে বাড়ছে হিট স্ট্রোক বা সান স্ট্রোকের ঝুঁকি। আবহাওয়া...